নিউক্যাসলকে হারিয়ে ইউরোপের আশা টিকিয়ে রাখলো ইউনাইটেড

নিউক্যাসলকে বুধবার প্রিমিয়ার লিগে ৩-২ গোলে পরাজিত করে হতাশাজনক মৌসুমে কিছুটা হলেও আশার আলো দেখছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এই জয়ে ইউনাইটেডের আগামী মৌসুমে ইউরোপীয়ান আসরে খেলার আশা এখনো টিকে থাকলো।
এরিক টেন হাগের দল এখনো প্রিমিয়ার লিগে সপ্তম স্থান নিশ্চিতের জন্য লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। অন্তত এই স্থানটি নিশ্চিত করতে পারলে আগামী মৌসুমে উয়েফা কনফারেন্স লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে ইউনাইটেড। তবে আগামী ২৫ মে ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে এফএ কাপের ফাইনালে জিততে পারলে ইউরোপা লিগে খেলাও নিশ্চিত হবে। কিন্তু ওয়েম্বলিতে সিটি জয়ী হলে কনফারেন্স লিগ নিয়েই ইউনাইটেডকে সন্তুষ্ট থাকতে হবে।
অষ্টম স্থানে থাকা ইউনাইটেড এখনো সেই স্থানের জন্য লড়াই টিকিয়ে রেখেছে। নিউক্যাসলকে হারিয়ে তারা সপ্তম স্থানে থাকা ম্যাগপাইদের সাথে সমান ৫৭ পয়েন্ট অর্জন করেছে। নিউক্যাসলের তুলনায় গোল ব্যবধানে ইউনাইটেড বেশ খানিকটা পিছিয়ে আছে। যে কারনে শেষ ম্যাচে ম্যাগপাইদের থেকে ভাল ফলাফল করতেই হবে ইউনাইটেডকে। রোববার মৌসুমের শেষ ম্যাচে ব্রাইটন সফরে যাবে ইউনাইটেড, নিউক্যাসল খেলবে ব্রেন্টফোর্ডের বিপক্ষে
কোবি মেইনু, ডিয়ালো ও রাসমাস হোলান্ডের গোলে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে গত নয় লিগ ম্যাচে তৃতীয় জয় নিশ্চিত হয় ইউনাইটেডের। নিউক্যাসলের এই পরাজয়ে পঞ্চম স্থানে থাকা টটেনহ্যামের আগামী মৌসুমে ইউরোপা লিগে খেলার নিশ্চিত হয়েছে।
এদিকে ষষ্ঠ স্থানে থাকা চেলসি বুধবার ব্রাইটনকে ২-১ গোলে পরাজিত করে ইউরোপীয়ান আসরে খেলার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে।
কাল ঘরের মাঠে এরিক টেন হাগের দলের জয় ভিন্ন বিকল্প কোন পথ খোলা ছিলনা। প্রিমিয়ার লিগ যুগে অতীতের কোন কোচের অধীনেই এতটা বাজে মৌসুম কাটেনি ইউনাইটেডের। যে কারনে টেন হাগের ভবিষ্যত নিয়েও যথেষ্ঠ শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
কাল ম্যাচ শেষে টেন হাগ বলেছেন, ‘এবারের মৌসুমে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের শেষ ম্যাচে জয়টা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। সমর্থকদের এটা প্রাপ্য। কারন তারা কঠিন একটি সময় পার করেছে, সবসময়ই তারা আমাদের সাথে ছিল। আমরাও সমর্থকদের কিছু দিতে চেয়েছি। শেষ ম্যাচে আমাদের প্রতিপক্ষ ব্রাইটন, র‌্যাঙ্কিংয়ের উন্নতির জন্য এই ম্যাচেও জয় জরুরী। যদিও পুরো বিষয়টি শুধুমাত্র আমাদের হাতে নেই, কিন্তু আমাদের নিজেদের কাজটুকু অন্তত সাড়তে হবে।’
প্রথমার্ধে ইউনাইটেডের আধিপত্য ৩১ মিনিটে সফল হয়। ডিয়ালোর ডিফ্লেকটেড পাসে একেবারে ফাঁকায় দাঁড়িয়ে থাকা মেইনু বল জালে জড়ান। ১২ গজ দুর থেকে ১৯ বছর বয়সী মিডফিল্ডার মেইনু লো ফিনিশে ইউনাইটেডকে এগিয়ে দেন। ৪৯ মিনিটে জ্যাকব মার্ফির ক্রস থেকে পোস্টের খুব কাছে থেকে সমতা ফেরান এন্থনি গর্ডন। ৫৭ মিনিটে ব্রুনো ফার্নান্দেসের কর্ণার থেকে ডিয়ালো নিউক্যাসল গোলরক্ষক মার্টিন ডুব্রাভাকাকে পরাস্ত করলে আবারো এগিয়ে যায় ইউনাইটড। বদলী বেঞ্চ থেকে উঠে আসা দুই মিনিটের মধ্যে ৮৪ মিনিটে দলের হয়ে তৃতীয় গোলটি করেন হোলান্ড। স্টপেজ টাইমে লুইস হলের কার্লিং শটের গোলে নিউক্যাসলকে স্বপ্ন দেখাতে থাকে। যদিও শেষ পর্যন্ত এই গোল সান্তনা হয়েই থেকেছে।
এ্যামেক্স স্টেডিয়ামে ৩৪ মিনিটে কোল পালমারের গোলে এগিয়ে যায় চেলসি। এনিয়ে এবারের লিগে ২২তম গোল করলে দারুন ছন্দে থাকা পালমার। ব্রাইটনের সাবেক লেফট-ব্যাক মার্ক কুকুরেলার ক্রসে পালমার দারুন হেডে গোলরক্ষক বার্ট ভারব্রুগেনকে পরাস্ত করেন। ৬৪ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করেন ক্রিস্টোফার এনকুকু। ইনজুরি আক্রান্ত মৌসুমে এটি এনকুকুর তৃতীয় গোল। মালো গুস্তোর ক্রস থেকে এনকুকু গোলটি করেছেন। হুয়াও পেড্রোকে লাথি মারার অপরাধে ৮৮ মিনিটে লাল কার্ড দেখে মাঠত্যাগ করেন চেলসি ডিফেন্ডার রেসি জেমস। স্টপেজ টাইমের সপ্তম মিনিটে ড্যানি ওয়েলবেকের ক্লোজ-রেঞ্জ ফিনিশ চেলসির ২০২২ সালের অক্টোবরের পর লিগে টানা চতুর্থ জয় নিশ্চিত হয়।
রোববার শেষ ম্যাচে বোর্নমাউথকে আতিথ্য দিবে মরিসিও পোচেত্তিনোর দল। এই ম্যাচে অন্তত ড্র করতে পারলেই ইউরোপে খেলার নিশ্চিত হবে। পোচেত্তিনো বলেছেন, ‘পুরো কৃতিত্ব খেলোয়াড়দের, এই জয়টা পুরোপুরি আমাদের প্রাপ্য ছিল। এ কারনেই আমি দারুন খুশী। দলের মধ্যে জয়ের আকাঙ্খা ছিল। এর ফলে আগামী মৌসুমে ইউরোপে খেলার স্বপ্ন টিকে থাকলো।’ (বাসস/এএফপি)