ব্যাট-বলের দাপটে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে হারালো অস্ট্রেলিয়া

ব্যাট-বলের দাপটে টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে বিশ^ চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডকে ৩৬ রানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এই জয়ে ‘বি’ গ্রুপে ২ ম্যাচে পূর্ণ ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে আছে অসিরা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ওমানকে ৩৯ রানে হারিয়েছিলো অস্ট্রেলিয়া। অন্যদিকে, প্রথম ম্যাচে বৃষ্টির কারনে স্কটল্যান্ডের সাথে পয়েন্ট ভাগাভাগির পর দ্বিতীয় ম্যাচে হারলো ইংল্যান্ড।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রিজটাউনে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামা অস্ট্রেলিয়াকে ৫ ওভারে ৭০ রানের সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার ট্রাভিস হেড ও ডেভিড ওয়ার্নার। দলীয় ৭৪ রানের মধ্যে সাজঘরে ফিরেন তারা। ২টি চার ও ৪টি ছক্কায় ওয়ার্নার ১৬ বলে ৩৯ এবং ২টি চার ও ৩টি ছক্কায় ১৮ বলে ৩৪ রান করেন হেড।
দুই ওপেনারের দারুন সূচনাকে কাজে লাগিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে বড় সংগ্রহ  এনে  দেন মিডল অর্ডারের তিন ব্যাটার অধিনায়ক মিচেল মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও মার্কাস স্টয়নিস।
তৃতীয় উইকেটে ম্যাক্সওয়েলকে নিয়ে ৪৯ বলে ৬৫ রান তুলেন মার্শ। ১৪তম ওভারে দলীয় ১৩৯ রানে মার্শকে শিকার করে ইংল্যান্ডকে ব্রেক-থ্রু এনে দেন লিয়াম লিভিংস্টোন। ২টি করে চার-ছক্কায় ২৫ বলে ৩৫ রান করেন মার্শ।
পরের ওভারে ম্যাক্সওয়েলকে শিকার করেন আদিল রশিদ। তবে আউট হওয়ার আগে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ২৫ বলে ২৮ রান করেন ম্যাক্সওয়েল।
এরপর লোয়ার-অর্ডার ব্যাটারদের নিয়ে মারমুখী মেজাজে রান তুলেন স্টয়নিস। ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ২০১ রানের সংগ্রহ পায় অস্ট্রেলিয়া। চলতি বিশ^কাপের ১৭তম ম্যাচে এসে কোন দল ২শ রানের কোটা স্পর্শ করলো। বিশ^কাপ ইতিহাসে কোন ব্যাটারের হাফ-সেঞ্চুরি ছাড়া এটিই সর্বোচ্চ দলীয় রানের ইনিংস।
স্টয়নিস ২টি করে চার-ছক্কায় ১৭ বলে ৩০ রান করেন। এছাড়া টিম ডেভিড ৮ বলে ১১ ও ম্যাথু ওয়েড ১০ বলে অপরাজিত ১৭ রান করেন। ইংল্যান্ডের ক্রিস জর্ডান ২টি উইকেট নেন।
২০২ রানের টার্গেটে উদ্বোধনী জুটিতে ৭ ওভারে ৭৩ রানে তোলে  ইংল্যান্ড। ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৩ বলে ৩৭ রান করা ওপেনার ফিল সল্টকে শিকার করে অস্ট্রেলিয়াকে প্রথম সাফল্য এনে দেন স্পিনার এডাম জাম্পা।
দশম ওভারে ইংল্যান্ড অধিনায়ক জশ বাটলারকে ফিরিয়ে দ্বিতীয় উইকেটের দেখা পান জাম্পা। ৫টি চার ও ২টি ছক্কায় ২৮ বলে ৪২ রান করেন বাটলার।
দুই ওপেনারের ফেরার পর উইল জ্যাকস ১০ ও জনি বেয়ারস্টো ৭ রানে আউট হলে চাপে পড়ে ইংল্যান্ড। সেই চাপ থেকে আর লড়াইয়ে ফিরতে পারেনি ইংলিশরা। পরের দিকে মঈন আলি ১৫ বলে ২৫, হ্যারি ব্রুক ১৬ বলে অপরাজিত ২০ ও লিভিংস্টোনের ১৫ রানেও হার এড়াতে পারেনি ইংল্যান্ড। শেষ পর্যন্ত  ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৬৫ রান করে ম্যাচ হারে তারা। অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্স ও জাম্পা ২টি করে উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন জাম্পা।
এ ম্যাচে দু’দলের কোন ব্যাটারই হাফ-সেঞ্চুরির ইনিংস খেলতে পারেননি। তারপরও দু’দলের ইনিংস মিলিয়ে ৩৬৬ রান উঠেছে। যা বিশ^কাপের মঞ্চে নতুন রেকর্ড। বিশ^কাপ ইতিহাসে ব্যাটারদের হাফ-সেঞ্চুরি ছাড়া ইনিংসে এক ম্যাচে এটি সর্বোচ্চ রান।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
অস্ট্রেলিয়া : ২০১/৭, ২০ ওভার (ওয়ার্নার ৩৯, মার্শ ৩৫, জর্ডান ২/৪৪)।
ইংল্যান্ড : ১৬৫/৬, ২০ ওভার (বাটলার ৪২, সল্ট ৩৭, জাম্পা ২/২৮)।
ফল : অস্ট্রেলিয়া ৩৬ রানে জয়ী। (বাসস)