রপ্তানিতে উৎসে কর ০.৫০ শতাংশ চায় পোশাক মালিকরা

রপ্তানির বিপরীতে উৎসে কর ১ শতাংশ থেকে কমিয়ে আগের মতো শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ করার দাবি জানিয়েছে রপ্তানিমূখী তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ। এ সুবিধা আগামী পাঁচ বছর পর্যন্ত কার্যকর রাখলে শিল্পটি বর্তমান সংকট কাটিয়ে উঠবে এবং স্বস্তিতে থাকবে বলে জানায় সংগঠনটি। শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত অর্থনীতি বিষয়ক সাংবাদিকদের সঙ্গে বিজিএমইএ পর্ষদের মতবিনিময় সভায় এসব দাবি জানান সংগঠনের সভাপতি এস এম মান্নান কচি।
তিনি বলেন, ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে রপ্তানির বিপরীতে প্রযোজ্য উৎসে কর শূন্য দশমিক ৫০ শতাংশ আগামী ৫ বছর পর্যন্ত কার্যকরের দাবি জানাই। এটি কার্যকর রাখলে শিল্পটি বর্তমান সংকট কাটিয়ে স্বস্তিতে থাকবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের রপ্তানির বিপরীতে প্রযোজ্য উৎসে কর ১ শতাংশ থেকে কমিয়ে আগের মতো শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ করে আগামী ৫ বছর পর্যন্ত কার্যকর করা হোক। একই সঙ্গে প্রণোদনার জন্য দেওয়া নগদ অর্থ সহায়তার ওপর আয়কর কর্তনের হার ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করার দাবি জানাই। আমরা চাই ২০২৯ সাল পর্যন্ত ইনসেনটিভ অব্যাহত রাখা হোক, পোশাক খাতের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্য ও সেবা ভ্যাটমুক্ত রাখা হোক।
বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, আসন্ন বাজেটে রপ্তানির স্বার্থে অগ্নি ও নিরাপত্তা সরঞ্জাম আমদানির ওপর কর রেয়াত এবং এসব পণ্য বিকল বা নষ্ট হলে প্রতিস্থাপনর জন্য রেয়াতি হারে আমদানির সুযোগ দেওয়া যুক্তিযুক্ত। শ্রমিকদের জন্য ফুড রেশনিং বাবদ বিশেষ তহবিল বরাদ্দ ও নন-কটন পোশাক রপ্তানি এবং বিনিয়োগে সহায়তা দেওয়া প্রয়োজন। তিনি আমদানি পণ্য খালাস এবং রপ্তানি পণ্য ছাড়করণ ও পণ্য চালান জাহাজীকরণে ওজনের ক্ষেত্রে এবং এইচএস কোড সংক্রান্ত জটিলতা দূর করার দাবি জানান। বলেন, পোশাক রপ্তানি বানিজ্যের স্বার্থে আমদানি রপ্তানির প্রক্রিয়াগুলো ব্যবসাবান্ধব, দ্রুততর ও সহজ করা প্রয়োজন।
বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে দেশের পোশাক শিল্পের জন্য প্রস্তাবিত এসব সুবিধা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বড় ভূমিকা রাখবে বলেও জানান তিনি। (বাসস)